মেনু নির্বাচন করুন

পুলিশ সুপার

 

সৃজনশীল দৃষ্টিভঙ্গি আর নানামুখি উন্নয়ন প্রচেষ্টার মধ্য দিয়ে অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করায় বিপিএম পদক পেয়েছেন বরগুনা পুলিশ সুপার বিজয় বাসক।

যৌন হয়রানি, জঙ্গিবাদ ও মাদক বাণিজ্যসসহ সব রকম অপরাধ নির্মূলে যার সাহসী ভূমিকা ইতোমধ্যেই নজর কেড়েছে বাংলাদেশ পুলিশের। অসংখ্য ইতিবাচক উদ্যোগের মধ্য দিয়ে পাঁচবার বরিশাল বিভাগের শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপারের সম্মান পাওয়ার পর সম্প্রতি তিনি পেয়েছেন বিপিএম পদক।

 

 

মাদক থেকে দূরে থাকার আহবান নিয়ে পুলিশ সুপার নিজেই রচনা করেছেন একটি স্লোগান-‘যে মুখে ডাকি মা সে মুখে মাদককে বলি না’। এ স্লোগানকে কেন্দ্র করে স্থানীয় শিল্পীদের সুরে রচনা করা হয়েছে মাদকবিরোধী সঙ্গীত। মাদকবিরোধী এ সঙ্গীত ও স্লোগানকে সামনে রেখে পাড়ায়-মহল্লায়, গ্রামে-গঞ্জে, স্কুল-কলেজ ও কমিউনিটি পুলিশিং-এর মাধ্যমে জঙ্গিবাদ, মাদক ও যৌন হয়রানিসহ সব রকম অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার বিজয় বসাকের নেতৃত্বে নিরবচ্ছিন্নভাবে প্রচার ও প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছে বরগুনা জেলা পুলিশ।

তরুণ প্রজন্মের মধ্যে দেশপ্রেম জাগিয়ে তুলতে তার উদ্যোগে বরগুনার ছয়টি উপজেলার ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রায় সাত হাজার শিক্ষার্থীকে জঙ্গিবাদ, মাদক ও যৌন হয়রানিসহ সব রকম অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে প্রচার ও প্রচারণায় সম্পৃক্ত করা হয়েছে।

১২ লাখ মানুষের নিরাপত্তায় মাত্র ছয়শ’ পুলিশ পর্যাপ্ত নয়। নানা সীমাবদ্ধতা ভাবনায় রেখে জেলার চারটি পৌরসভাসহ ৪২টি ইউনিয়নে গঠন করা হয়েছে কমিউনিটি পুলিশিং-এর স্থানীয় কমিটি। কমিউনিটি পুলিশিং এবং গ্রাম পুলিশিং কার্যক্রমকে আরও গতিশীল করে তুলতে সাফল্যের স্বীকৃতি স্বরূপ জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে কমিউনিটি পুলিশিং এর তৃণমূল নেতৃবৃন্দকে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে নিয়মিত ধন্যবাদপত্র ও সম্মাননা ক্রেস্ট উপহার দিয়ে আসছেন পুলিশ সুপার বিজয় বসাক। এসব নানামূখি উন্নয়ন প্রচেষ্টার কারণে বরগুনার কমিউনিটি পুলিশিং এবং গ্রাম পুলিশিং কার্য্যক্রম বিগত যেকোনো সময়ের চেয়ে অনেক গতিশীল বলে মনে করেন স্থানীয় সচেতন মহল।


Share with :

Facebook Twitter